সিংগাইরে গজ কাপড় ভেতরে রেখে অপারেশন

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: গজ কাপড় ভেতরে রেখে রোগীর ব্রেষ্ট অপারেশন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। অনভিজ্ঞ ডাক্তারের এ ধরনের খামখেয়ালীপনায় রোগীর অবস্থা এখন মর্মান্তিক।

ঘটনাটি ঘটেছে সিংগাইর উপজেলার রামনগর গ্রামে ৩ সন্তানের জননী ছফুরা খাতুন (৪০) নামে অসহায় এক রোগীর ক্ষেত্রে। জানা গেছে, আড়াই মাস আগে রামনগর গ্রামের উসমান মণ্ডলের স্ত্রী ছফুরা খাতুনের ব্রেষ্ট টিউমার দেখা দেয়। পাশের গ্রাম সজোর মোড়ার নাজিম উদ্দিনের ছেলে ডা. আহাদুজ্জামান সবুজ ওরফে সবুজ ডাক্তার ভালো চিকিৎসার কথা বলে সাভারের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে তাকে ভর্তি করান। ডা.সবুজ নিজেই সেখানে অপারেশন করেন।

কিছুদিন না যেতেই অপারেশনের জায়গায় ইনফেকশন হয়। দেখা দেয় প্রচণ্ড ব্যাথা। পূনরায়  ডা.সবুজের স্মরণাপন্ন হলে ডা. সবুজ এরপর তার মালিকাধীন সিংগাইর থানা সদর কলেজ রোডে মেট্রো ডিজিটাল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার এন্ড ডক্টরস চেম্বারে যাওয়ার পরামর্শ দেন। সেই অনুযায়ী গত ২০ জানুয়ারি সিংগাইরের ওই ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে  ডা.সবুজ পুনরায় অপারেশন করেন। তখন দেখা যায় ভেতরে গজ কাপড় রয়ে গেছে এবং তিনি তা বের করে আনেন। ছফুরা বলেন, ভুল চিকিৎসায় আর্থিকভাবে যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি তেমনি ভোগ করতে হয়েছে প্রচণ্ড যন্ত্রণা।

এদিকে এলাকাবাসীর প্রশ্ন বৈধ কাগজপত্র ছাড়া প্রশাসনের নাকের ডগায় কি করে এ ধরনের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার চালু করে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে গলাকাটা ব্যবসা করছে। এর বিহিত হওয়া দরকার।

সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমকর্তা ডা. সেকেন্দার আলী মোল্লা বলেন, অভিজ্ঞ সার্জন ছাড়া এ অপারেশন করতে পারেন না। উনি সার্জন কিনা তা আমার জানা নেই। তবে এ ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের কোন বৈধ কাগজপত্র নেই বলে আমরা জানতে পেরেছি। এ ব্যপারে সিভিল সার্জন ডা. তপরেশ বিশ্বাসকে প্রধান করে একটি তদন্ত টিমও গঠন করে প্রতিবেদন চেয়েছেন।

এদিকে কাগজপত্র এখনো হয়ে সারেনি তবে প্রক্রিয়াধীন এমন কথা স্বীকার করে মেট্রো ডায়াগনষ্ট্রিকের ডা. সবুজ বলেন, এটার মালিক আমি একা নই। তবে সাভারের সীমা জেনারেল হাসপাতালে আমি যখন অপারেশন করেছি তখন রোগীর ক্ষতস্থানের ভেতরে গজ কাপড় ছিল না। এছাড়া সময়মতো রোগী আমার কাছে না এসে স্থানীয় চিকিৎসক দিয়ে অপারেশনের জায়গা ড্রেসিং করাকালে ক্ষতস্থানে গজ কাপড় রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে সমস্যা দেখা দিলে তখন আমার কাছে এসেছে।

bangla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *