দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক হত্যা, বাংলাদেশির যাবজ্জীবন সাজা

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক রো জং সিন হত্যা মামলায় মানিক সরকারকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এর বিচারক আব্দুর রহমান সরদার এ রায় ঘোষণা করেন। সেই সঙ্গে বিচারক আসামিকে ১০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড এবং তা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদণ্ডের আদেশ প্রদান করেন।

রায় শেষে আসামিদের সাজা পরোয়ানাসহ কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে মাহফুজুর রহমান লিখন ও আসামি পক্ষে হাসানুজ্জামান সেলিম উপস্থিত ছিলেন।

বিচারক আব্দুর রহমান সরদার রায়ের পর্যালোচনায় উল্লেখ করেন, রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষসমূহের পর্যালোচনা, উভয় পক্ষের বিজ্ঞ কৌসুলির বক্তব্য শ্রবণ, আসামি মানিক সরকারের ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী পরীক্ষাসহ ঘটনার পারিপার্শ্বিকতা বিচার বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ঘটনার সময় ও তারিখে আসামি মানিক সরকার পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এবং পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেন ভিকটিমের বাসায় প্রবেশ করে তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে রক্তাক্ত জখম করে এবং সে কারণেই ভিকটিম চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। রাষ্ট্রপক্ষ আসামির বিরুদ্ধে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ৩০২ ধারার অভিযোগ সুনির্দিষ্ট ও সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণ হয়েছে। ঘটনার সময় পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক ভেজিটেবল কাটার ছুড়ি দিয়ে ভিকটিমের গলায় ছুরিকাঘাত করে মারাত্মকভাবে জখম করে আসামি এবং ভিকটিম চিকিৎসাধীন অবস্থায় কোরিয়ায় মৃত্যুবরণ করেন। তাই উক্ত ধারায় আসামিকে শাস্তি প্রদান করা হল।

মামলার বাদী পার জং সিন দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক। তিনি বাংলাদেশের গুলশানস্থ আরিয়ান কোরিয়ান রেস্টুরেন্টের মালিক। গত ২০১১ সালের ৯ নভেম্বর সকাল ৭টার সময় তার স্ত্রী রো জং সিন একজন বাংলাদেশি লোকদ্বারা আক্রান্ত হয়ে গুরুতর জখম হন। আক্রমণকারীর নাম মানিক সরকার। ছুরিকাঘাত করে হত্যা করার উদ্দেশ্যেই সে আক্রমণ করে। এ ঘটনায় আসামির বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করেন পার জং সিন।

পরবর্তীতে দক্ষিণ কোরিয়া চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হলে সেখানে মারা যান রো জং সিন। অন্যদিকে গুলশান থানার মামলায় আসামিকে গ্রেফতারের পরে সিএমএম আদালতে হাজির করা হয়। সেখানে এই অপরাধ করার কথা জানিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন মানিক সরকার।

bangla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *