জিএসপি নিয়ে অর্থমন্ত্রীর আক্ষেপ

1475482981নিজস্ব প্রতিবেদকম,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: মার্কিন জিএসপি সুবিধা না পাওয়ায় আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। নিউইয়র্কে বাংলাদেশি আমেরিকার ব্যবসায়ীদের এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ প্রসঙ্গে বলেছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের সব দেশকে জিএসপি সুবিধা দিচ্ছে। দুটি দেশকে তারা এ সুবিধা দিচ্ছে না, এরমধ্যে একটি বাংলাদেশ।

স্থানীয় সময় রবিবার দুপুরে নিউইয়র্কের উডসাইডের গুলশান টেরেস মিলনায়তনে আমেরিকান বাংলাদেশি জিনেস এলায়েন্স আয়োজিত (এবিবিএ) মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, জিএসপি নিয়ে প্রতিবছরই যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের আলোচনা হয়। তারা আমাদের উন্নয়নের প্রশংসা করেন। কিন্তু জিএসপি নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কখনো কোনো বক্তব্য থাকে না। তিনি বলেন, এই শাস্তি তারা কেন আমাদের দিচ্ছে- তা বুঝার কোনো উপায় নেই।

মতবিনিময় সভায় অর্থমন্ত্রীর কাছে বাংলাদেশে বিনিয়োগের অবাধ সুযোগ চান বাংলাদেশি আমেরিকার ব্যবসায়ীরা। বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে আরো উদ্যোগী হওয়ার পরামর্শ দেন তারা। এ বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপনের আশ্বাস দেন অর্থমন্ত্রী।

মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন মার্কিন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং, রূপালী ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান ড. আহমেদ আল কবীর, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল মো. শামীম আহসান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।

সাংবাদিক ও উপস্থাপক আশরাফুল হাসান বুলবুল ও এএফ মিসবাহুজ্জামানের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য দেন ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার, মো. বিলাল চৌধুরী, আবুল ফজল দিদারুল ইসলাম, এটর্নি মঈন চৌধুরী, আব্দুস শহীদ, মো. শাহ নেওয়াজ, সালেহ আহমেদ, সাঈদ হোসেন প্রমুখ।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে মঞ্চে বসা ছিলেন মতবিনিময় সভার অন্যতম আয়োজক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সাঈদ রহমান মান্নান, ডা. মাসুদুল হাসান, মোস্তফা কামাল প্রমুখ। এছাড়া কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় প্রতিবন্ধকতা হচ্ছে জঙ্গিবাদ। গুলশানের হলি আর্টিজেনে ঘটনায় বাংলাদেশের ক্ষতি হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তা শক্ত হাতে পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সাহসী এবং কঠোর পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল হয়েছে দাবি করে অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, এ কাজে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দৃঢ়তার সঙ্গে কাজ করছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের কোনো স্থান নেই। তাদের মূল উৎপাটন করা হচ্ছে। বাংলাদেশে যে জঙ্গিবাদের স্থান নেই- সে বিষয়টি বিদেশি বিনিয়োগকারীদের প্রবাসীরাই বুঝাতে পারেন।

মার্কিন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্ক আরো সৃদৃঢ় হচ্ছে। আগামীতে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে চাই।

মতবিনিময় সভার মুল প্রবন্ধে ড. আহমেদ আল কবীর বাংলাদেশে বিগত ৭ বছরের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার কথা তুলে ধরেন। কিছু সমস্যার কথাও জানান তিনি।

bangla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *