ব্রাসেলস এ ইউরোপিয় পার্লামেন্টে বিশ্বয়কর বাংলাদেশ – অর্থনীতি, উন্নয়ন ও ভবিষ্যৎ  চ্যালেঞ্জ” শীর্ষক সম্মেলন

কবির আল মাহমুদ, বর্তমানকন্ঠ ডটকম : সম্প্রতি বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মাধ্যম আয়ের দেশের স্বীকৃতি পাওয়া, সন্ত্রাস নির্মূল, দারিদ্র বিমোচন, সামাজিক উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন অর্থনৈতিক মুক্তি ও বিশ্ব শান্তির পক্ষে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী, শেখ হাসিনা এবং তার সরকারের ধারাবাহিক অভূতপূর্ব সাফল্যকথা বিশ্বময় ছড়িয়ে দেবার নিমিত্বে ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসাবে বেলজিয়াম আওয়ামী লীগ এই কনফারেন্সের আয়োজন করে। গত  বৃহস্পতিবার (২৮ জুন )  ব্রাসেলস এ ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট এর কক্ষে।
ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ‘এম ই পি’ ও দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক প্রতিনিধি দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ‘মি: রিচার্ড কর্বেটের’ সভাপতিত্বে এবং উক্ত কনফারেন্সের আয়োজকদের অন্যতম সমন্বয়ক, বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী রতনের সঞ্চালনায় এতে পেনেলিস্ট ও বক্তা  ছিলেন, মি. সাজ্জাদ করিম, এম ই পি, বেলজিয়াম, লুক্সিমবার্গ ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সাহাদত হোসেন। বাংলাদেশের বন্ধু, দক্ষিণ এশীয়ান ডেমোক্রেটিক ফোরামের পরিচালক ও সাবেক পর্তুগিজ এম ই পি, মি. ‘পাওলো কসাকা’ সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাস গুপ্ত, সাধারণ সম্পাদক এম এ গনি, সম্মেলনের উদ্যোক্তা, সমন্বয়ক ও সর্ব ইউরোপীয় আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক খোকন শরীফ।
সম্মেলনে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত অতিথিদের আসা ও সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ প্রদান করে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মেলনের উদ্যোক্তা ও বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সভাপতি সহিদুল হক। তিনি বাংলাদেশের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সকলের আরো অধিক সহযোগীতার আহব্বান জানান এবং এই সম্মেলনের সাফল্য কামনা করেন।
সম্মেলনের সভাপতি ‘মি: রিচার্ড কর্বেট’ তার মূল বক্তব্যের পূর্বে সম্মেলন উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রদত্ত বাণী পাঠ করে শুনান এবং মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন। তিনি বিভিন্ন সেক্টরে বাংলাদেশের উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং এই উন্নয়ন যাত্রাকে ধরে রাখার জন্য সবাইকে আরো বেশি সক্রিয় ভূমিকা পালনের উপর জোড় দেন। আগামী নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য তারা সচেষ্ট থাকবেন এবং এজন্য ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বাংলাদেশকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন। তিনি রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে বলেন, যুগ যুগ ধরে রোহিঙ্গাদের এই সমস্যা জিইয়ে রাখা সম্ভব না। তাদের পরবর্তী প্রজন্মকেও এখানে বেড়ে উঠতে দেয়া যায় না। তারা রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আরো বেশি সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন।
তিন পর্বের সম্মেলনের, দ্বিতীয় পর্বে বক্তব্য রাখেন ইউ কে, লেবার পার্টি থেকে নির্বাচিত এম ই পি সাজ্জাদ করিম। তিনি দীর্ঘ বক্তব্যের পুরাটাতে বাংলাদেশের প্রশংসায় ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের সাথে দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের সাথে বিভিন্ন উন্নয়ন সূচকের প্রশংসনীয় উর্ধ্বস্থানের তুলনা মূলক ব্যাখ্যা করে বলেন, বাংলাদেশ- এশিয়া ও ক্ষেত্রভেদে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। তিনি ই ইউ সহ সহযোগী দেশ ও সংস্থাকে বাংলাদেশের উন্নয়নে সহযোগিতার হাতকে আরো প্রসারিত করার আহব্বান জানান।
সম্মেলনের নির্ধারিত দুজন এম ই পি যারা বিশেষ কারণে আসতে পারেননি তাদের প্রেরিত বাণী পড়ে শোনান যথাক্রমে মি: করবেট এবং জাহাঙ্গির চৌধুরী রতন।
সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ সরকারের উন্নয়ণের বিশদ ব্যাখ্যা তুলে ধরার পাশাপাশি ই ইউ সহ সকল উন্নয়ন সহযোগীকে বাংলাদেশ সরকারের সাথে থাকার অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের চাকা সচল রাখতে হলে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে জঙ্গিবাদ যেন আর মাথা চাড়া দিতে না পারে সেদিকে সবার দৃষ্টি রাখা জরুরি। তিনি ইউরোপিয় ইউনিয়নকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান জননেত্রী শেখ হাসিনাকে সন্ত্রাস দমনে বিশেষ সহযোগিতার করার জন্য।
এছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন এম এম মোর্শেদ  ব্যারিস্টার নাদিয়া, সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক  ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া। তারা বলেন, বাংলাদেশের আজকের এই উন্নয়নে মূল চাবি হিসাবে কাজ করেছে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব। তারা আরো বলেন, আগামীতে এদেশকে আরো এগিয়ে নিয়ে উন্নত বিশ্বের কাতারে দাঁড় করতে হলে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও সরকারের ধারাবাহিকতা জরুরি।
উক্ত সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ও আই সির পক্ষ থেকে নিযুক্ত ই ইউ রাষ্ট্রদূত, মিসেস ইসমত জাহান। বাসুগ সভাপতি বাবু বিকাশ বড়ুয়া, ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ ফোরামের সভাপতি আহমেদ আনছার উল্লাহ। এছাড়া আরোও উপস্থিত ছিলেন, ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সম্মানিত নেত্রী বৃন্দ, ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে তথা ফ্রাঞ্চ, জার্মানী, হল্যান্ড, স্পেন, পর্তুগাল, সুইডেন, ইউ কে, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ইটালী, সুইজারল্যান্ড সহ ইউরোপ ও বাংলাদেশ থেকে আগত আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের বিপুল সংখ্যাক নেতা কর্মী। এছাড়া বেলজিয়াম আওয়ামী লীগ যুবলীগ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, ছাত্র লীগ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঘঠনের বিপুল পরিমাণ নেতা কর্মীর উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। সবশেষে ছিল সবার জন্য উন্মুক্ত প্রশ্ন উত্তর পর্ব এতে সবার প্রশ্নের উত্তর দেন রিচার্ড করবেট।
উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালে বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠিত হবার পর থেকে সংগঠনটি, জন নেত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায়, গতানুগতিক রাজনীতির বাইরে এসেও দেশ ও দশের স্বার্থে বিভিন্ন গণমুখী ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচি হাতে নেয়। আজকের এই সম্মেলন তারই অংশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *